বেলকুচি সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সফল চেয়ারম্যান (১৯৭৭-১৯৮৩) জনাব আলহাজ মোঃ আব্দুল মজিদ সরকার এর একান্ত স্বপ্ন ছিল তার নিজ গ্রাম চালা’তে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করা। তার স্বপ্ন পূরনের লক্ষ্যে তিনি বেলকুচি কামারখন্দ নির্বাচনী এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য জনাব আলহাজ মোঃ শহীদুল ইসলাম খান সাহেবের কাছে তিনি তার ইচ্ছার কথা জানান। পরবর্তীতে তিনি বিষয়টি নিয়ে বেলকুচি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জনাব মোঃ আব্দুল মজিদ প্রামানিক এর সাথে আলাপ করেন। অতঃপর ১৬ এপ্রিল/১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দ তারিখে জনাব আলহাজ মোঃ আব্দুল মজিদ সরকার সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার চালা গ্রামে অত্র কলেজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তার নিজ বাসভবনে অত্র অঞ্চলের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সর্বসাধারনের এক সভা আহবান করেন।

উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন বেলকুচি কামারখন্দ নির্বাচনী এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য জনাব আলহাজ মোঃ শহীদুল ইসলাম খান। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বেলকুচি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ মোঃ আব্দুল মজিদ সরকার এবং বেলকুচি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জনাব মোঃ আব্দুল মজিদ প্রামানিক, জিধুরী নিবাসী মরহুম মতিয়ার রহমান সি.ও সাহেব, বয়ড়াবাড়ী নিবাসী মরহুম মুক্তার হোসেন সরকার, বেলকুচি ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য জনাব মোঃ রজব আলী মাঙ্গন, বেলকুচি ইউনিয়নের সাবেক সদস্য জনাব মোঃ মন্তাজ আলী প্রামানিক, অত্র কলেজের অধ্যক্ষ জনাব মোঃ আব্দুল মান্নান সরকার সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। উক্ত সভায় বেলকুচি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ মোঃ আব্দুল মজিদ সরকার মহোদয় প্রস্তাব করেন যে, আমি অত্র চালা গ্রামে অত্র এলাকার মেয়েদের উচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করতে চাই এবং প্রয়োজনে কলেজের জন্য যে পরিমান জমি দরকার তাও আমি দান করতে ইচ্ছুক। অতঃপর জনাব আলহাজ আব্দুল মজিদ সরকার সাহেবের প্রস্তাবে উপস্থিত সকলেই আনন্দচিত্তে সমর্থন করেন এবং এ ব্যাপারে সবাই সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস প্রদান করেন।

         উক্ত সভায়ই সকলের সমর্থনে কলেজ প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত হয়। অতঃপর সভার মতামতের ভিত্তিতে কলেজের নামকরন করা হয় ‘‘বেলকুচি মহিলা কলেজ”। কলেজের ছাত্রী ভর্তির প্রাথমিক অনুমতি লাভ ও অন্যান্য অফিসিয়াল কাজ কর্ম করার দায়িত্ব নেন বেলকুচি কামার-খন্দ নির্বাচনী এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য জনাব আলহাজ শহীদুল ইসলাম খান। শুরু হয় কলেজ প্রতিষ্ঠার কাজ। প্রাথমিক ভাবে জনাব আলহাজ মোঃ আব্দুল মজিদ সরকার মহোদয় কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য তার নিজ নামীয় চালা মৌজায় ১.০১ একর এবং দেলুয়া মৌজায় ০.৬৭ একর জমি কলেজের নামে রেজিষ্ট্রি দলিল মূলে দান করেন। অতঃপর ০৯/১০/১৯৯৮ খ্রিঃ তারিখে উক্ত কলেজের প্রয়োজনীয় সংখ্যক শিক্ষক/কর্মচারীদের প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ প্রদান করা হয়। অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ পান অত্র সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার চালা গ্রামের বিশিষ্ট শিক্ষা অনুরাগী জনাব মোঃ আব্দুল মান্নান সরকার।

অতঃপর বেলকুচি-কামার খন্দ নির্বাচনী এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য জনাব আলহাজ মোঃ শহীদুল ইসলাম খান মহোদয় শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহীতে যোগাযোগ করে অত্র ”বেলকুচি মহিলা কলেজ” এর নামে গত ২৭/১০/১৯৯৮ খ্রিস্টাব্দ তারিখে একাদশ শ্রেণীতে ছাত্রী ভর্তির প্রাথমিক অনুমতি লাভ করেন। প্রাথমিক অনুমতি লাভের পর অত্র কলেজটির পরিচালনা কমিটির প্রথম সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন বেলকুচি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জনাব মোঃ আব্দুল মজিদ প্রামানিক।

        প্রাথমিক ভাবে কলেজটির কোন অবকাঠামো না থাকায় বেলকুচি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জনাব আলহাজ মোঃ আব্দুল মজিদ সরকার তার নিজ বাড়ীর বর্হি বাটিতে ৮ টি কক্ষ কলেজ পরিচালনার জন্য বিনা ভাড়ায় ব্যবহার করার অনুমতি দেন। তদস্থলে আগষ্ট/২০০১ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত উক্ত বেলকুচি মহিলা কলেজের একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

        অতঃপর জনাব আলহাজ মোঃ আব্দুল মজিদ সরকার এবং জনাব মোঃ আব্দুল মজিদ প্রামানিক মহোদয়ের আর্থিক সহযোগিতায় কলেজের নিজস্ব জায়গায় ১২০ ফুট লম্বা এবং ২৩ ফুট চওড়া ৭ কক্ষ বিশিষ্ট একটি টিনের চৌচালা ঘর নির্মান করা হয়। পরবর্তীতে সেপ্টেম্বর/২০০১ খ্রিস্টাব্দে কলেজটি পূর্ববর্তী স্থান থেকে নিজস্ব জায়গায় স্থানান্তর করা হয়। প্রয়োজনীয় সংখ্যক ছাত্রী নিয়ে কলেজটির যাত্রা নবরূপে শুরু হয়।

       পরবর্তীতে ২০০৩ খ্রিস্টাব্দে অত্র কলেজে কারিগরি শিক্ষার জন্য বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক এইচ.এস.সি (ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা) কোর্সটি চালু কার হয়। তৎপ্রেক্ষিতে অত্র এলাকার জনসাধারন ও ছাত্র/ছাত্রীদের দাবীর প্রেক্ষিতে ২০০৯ খ্রিস্টাব্দে অত্র বেলকুচি মহিলা কলেজ এর নাম পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেরাও যাতে অত্র কলেজে লেখা পড়া করতে পারে তৎপ্রেক্ষিতে বেলকুচি মহিলা কলেজের নাম পরিবর্তন করে ”বেলকুচি মডেল কলেজ” নামকরন করা হয়। অতঃপর ৬ জানুয়ারী/২০১০ খিস্টাব্দ তারিখে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক বেলকুচি মডেল কলেজ নামকরন অনুমোদন প্রাপ্ত হয়। অতঃপর অত্র কলেজে সহশিক্ষা চালু হয়।

       প্রতিষ্ঠা কালীন সময় থেকে অদ্যাবধি অত্র কলেজের সকল কার্যক্রমে গুরুত্বপূর্ন দায়িত্ব পালন করেন অত্র করেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ জনাব মোঃ আব্দুল মান্নান সরকার।